Jun 27 2008

Sarmad – Every man who is aware of his secret

Published by at 9:37 am under Poetry

Every man who is aware of his secret
by Sarmad

English version by Dr. Zahurul Hasan Sharib

Every man who is aware of his secret
He becomes concealed even from the skies.
The mullah says that Ahmad went to the heavens
Sarmad says that the heavens were inside Ahmad!


/ Photo by beggs /

Every man who is aware of his secret
He becomes concealed even from the skies.

Isn’t that a great opening half to this quatrain? When we become aware of the secret contained within us, the ego self disappears. What most people think of when they call you a person becomes “concealed… even from the skies.”

The mullah says that Ahmad went to the heavens
Sarmad says that the heavens were inside Ahmad!

These closing lines are saying something interesting too. Islamic religious tradition (taught by the mullahs or spiritual leaders) tells of the Mi’raj when the Prophet Mohammed (Ahmad) journeys to the Dome of the Rock / Al-Aqsa Mosque on the Temple Mount in Jerusalem, and from there ascends into the heavens, where he converses with other prophets and, ultimately, God.

Sarmad, with the mystic’s instinct, turns this inward, declaring that the Mi’raj was not an external journey, but a journey within, for “the heavens were inside Ahmad!” This declaration makes the journey to heaven available to us all; we may not all be prophets, but we all can discover the same heavenly core within ourselves.

If we then go back and consider how the two halves of this verse fit together, Sarmad seems to be suggesting that discovering this “secret,” the fundamental truth of reality, shifts our conceptual relationship with the heavens/skies. We are no longer held beneath the heavens, instead they are found within us, within the spacious center of the heart. This sense of being “concealed,” the loss of the little self, also means a loss of limiting boundaries. It is only in this expanded, yet formless sense of self that we discover the inner pathway to the Divine. Or, you could say, that we discover the heavens as already here, already within us. It is a journey in which we have already arrived.

We can also choose to read a contemporary political meaning into this, as well. The Al Aqsa Mosque in Jerusalem (which is also the ancient site of Solomon’s temple) is the physical site of the Prophet Mohammed’s ascendance to heaven, but Sarmad says the heavens are within. We could say then that the Temple Mount is the heart of the world, the place where the world has the potential to discover heaven, as well as where we can cause each other the greatest harm by denying the inherent heavenly nature of the world.

The spiritual journey, whether personal or global, is always a question of the heart. The more we open the heart to others, the more it opens unto us, finally revealing the secret pathway to the heavens. It is a pathway with precisely one step: a courageous step into the living present. Inexplicably, the whole world follows.

Have a beautiful weekend… journeying in the heart!

Sarmad

Iran/Per (? – 1659) Timeline
Muslim / Sufi
Jewish

Sarmad, or Hazrat Sarmad Shaheed (sometimes called Sarmad the Cheerful or Sarmad the Martyr), is a fascinating and complex character who seems to have bridged several cultures in Persia and India. Apparently, Sarmad originally lived in an Armenian community in Iran. Some believe that Sarmad was from a Jewish background, earning him the modern epithet of the Jewish Sufi Saint of India. Other scholars suggest he was Christian before taking up the Sufi path.

He had an excellent command of both Persian and Arabic, essential for his work as a merchant. Hearing that precious items and works of art were being purchased in India at high prices, Sarmad gathered together his wares and traveled to India where he intended to sell them.

Near the end of his journey, however, he is said to have fallen in love with a dervish boy. This ardent love (‘ishq) created such a radical transformation in his awareness that Sarmad immediately dropped all desire for wealth and worldly comfort. In this ecstatic state, he even lost all concern with social convention and began to wander about without clothes, becoming a naked faqir.

He continued journeying through India, but now as a naked dervish rather than as a merchant. He ended up in Delhi where he found the favor of a prince in the region and gained a certain amount of influence at court. That prince, however, was soon overthrown by Aurengzeb, who saw the naked Sarmad as a political enemy. Sarmad was eventually accused of political crimes and unorthodox Muslim practice, and Sarmad was put to death.

More poetry by Sarmad

11 responses so far

11 Responses to “Sarmad – Every man who is aware of his secret”

  1. xanderon 27 Jun 2008 at 4:37 am

    beautiful commentaries and poetry here. :) thanks ivan for being so kind to share them with us.

    i always love reading poetry chaikhana's daily poems, especially after all day being scattered around the web and campus here in Magdeburg, Germany. yes, i definitely need something to put me together and the daily poems are a wonderful remedy for this.

    thank you and keep up sending positive energy throughout the universe with daily poems, music and commentaries.

    sending you my best,

    xander

  2. salamon 27 Jun 2008 at 10:04 am

    dear Ivan,

    He asked me what have I brought,

    I,looked at myself,bowed,prostrated

    what have i of my own

    and breath the last.

    salam.

  3. jmon 28 Jun 2008 at 1:09 am

    Amin.

    [/quote = Ivan]

    It is a pathway with precisely one step: a courageous step into the living present. Inexplicably, the whole world follows.

    [/unquote]

    Yes, bottoms up within.

    From the bottom up without.

    Looking back at the Silk Road,

    the many tracks that wander in the desert were made by the same two feet.

    Now see the sands of time between the steps dissolve,

    each footprint a mirage.

    Another humble Soul takes a seat

    in the Teahouse.

    ~jm

  4. Ivan M. Grangeron 28 Jun 2008 at 1:35 am

    Xander,

    I know that feeling of being scattered about. I support my family by working as a part-time computer programmer, and I spend much of my day juggling different projects on the computer. By the end of the day, it can feel like I'm 15 different people. Those daily poems and music can restore us to a unified sanity. :-)

    Ivan

  5. Ivan M. Grangeron 28 Jun 2008 at 1:35 am

    Dear Salam,

    He asked me what have I brought.

    He took my breath.

    Ivan

  6. Ivan M. Grangeron 28 Jun 2008 at 1:36 am

    The inner and the outer journey–

    I received an email from someone who correctly pointed out that the tradition of the Prophet Mohammed's journey to the heavens did not originate with the mullahs. It is originally described in the Quran itself. And many Muslims, particularly Sufis, have always understood the journey to be both external and internal.

    I didn't mean to suggest that Sarmad's assertion was unique or that he was the first to suggest that the Mi'raj can be understood internally.  I think he was trying to counter an overly literalist or external interpretation of the journey, but I am aware that many people have always understood the Mi'raj to be both an outer and an inner journey at the same time.  The reference to the mullahs as the source of the teaching was in Sarmad's verse.  I am sure he was aware that the original description of the Prophet Mohammed's journey is in the Quran, but I think he was trying to point out that the more limited understanding of the Mi'raj was through the imperfect teaching of some of the mullahs.  That's how I would understand Sarmad's words.  Does that make sense to you too, or do you feel there is something important that I am overlooking?  I always welcome other people's perspectives and interpretations…

  7. salamon 01 Jul 2008 at 9:35 am

    My Dear Ivan,

    What you said is right and what the gentleman you mentioned,wrote, is right as well.

    Your understanding of the matter is perfect,as its inner & outer both.

    Its all US & its all HIM.Depends, where you are at that moment of time.

    The duality/outer is as long as you have your ego or consciousness in between, other wise you can not keep the difference of i & HIM.Consciousness & ego makes you small and creates the need or want of a thing.Where, even if it is the smallest level of Ecstasy like poet.Takes you up,away from the body,may be for a small moment of time, you become.I,HIM or YOU.Sure than like SARMAD / MANSOOR are slain to death.OR UNITED.

    Mullahs of all religions, have been very dualistic/egoistic/conscious.

    My saying of ;What have you brought,I looked at myself,do i have any thing of my own.NOT, even the breath is His.So here do i prostrat, in my humbleness/gratitude. For YOU, being so kind, to let me have all this.I can only return what is yours,my breath; as its pure like you are.

    But,dear,

    as you may know. When the words start pouring,you hardly know.

    regards.

    salam

  8. Subhan Alion 06 Jul 2008 at 2:57 pm

    R/Sir, I heard the name of Sarmad when I was a child, but did not know about him that what type of poetry he wrote and when wrote. Today I have known about Sarmad. In India his name is still famous among the people having interest in spiritual viewpoints. God bless you respected Ivan. ………Subhan Ali

  9. gazi saiful islamon 29 Mar 2009 at 4:26 am

    Dear Ivan,
    Very many thanks for your information about saint Sarmad by sending a short note on his life and some poetries by him.
    Friend Ivan, before your information I knew him very closely. I translate a long story about his life & 20 Rubaiyat. The article was published in a daus megagine, Eid Issue of a daily of our country.
    Sarmad originally lived in an Armenian community in Iran.Some believe that Sarmad was from a Jewish background, earning him the modern epithet of the Jewish Sufi Saint of India. Other scholars suggest he was Christian before taking up the Sufi path (Related Muslim). ÔÔcame out to India as a merchant from Persia by sea. He set up in business in the town of Thathah in Sindh, on the shores of the Indus, where his business thrived exceedingly and he spent his days in comfort and peace. During his sojourn in that city he contracted a close friendship with a Hindu lad, Abhai Chand by name. This was the turning point in his life, for unlike his calculating and serious minded countrymen, he neglected his business, lost the equilibrium of his mind altogether and relinquishing his life of comfort and peace, he lived thenceforth the austere life of a naked Hindu fakir- (ascetic) and in this nude state he would go and sit at the door of his beloved Abhai Chand. The following translation of a distich shows the true sentiment of the distracted Sarmad : “I know not if in this spherical old monastery [the world} My God is Abhai Chand or some one else."
    The boy's father seeing the earnestness of the ascetic, and the purity of the attachment, allowed him to come to his house with [169] the result that his son Abhai Chand became so much attached to Sarmad that he could not bear to live apart from him. Soon after this, both left Thathah and went to Delhi. Shah Jehan was then the Mogul Emperor of India. People flocked round Sarmad and many found him to be a man of great sanctity and supernatural powers. Ó
    When, in Delhi, people flocked round Sarmad, one day, Emperor Shah Jehan come to him with his elder son Dara Shikuh. And soon Dara became his desciple. For fiendship with Dara Sarmad became a political enemy of Aurengzeb, who was Dara’s younger brother. Then Aurengzeb took the power of the Empier. And who saw the naked . Sarmad was eventually accused of political crimes and unorthodox Muslim practice, and Sarmad was eventually put to death.
    An European, Niccolao Manucci, in his “Storia do Mogor” (as translated by William Irvine, 1901) writes :—
    Vol. I, p. 223 : Dara held to no religion, when with Mahommedans, he praised the tenets of Muhammad, when with Jews, the Jewish religion ; in the same way. when with Hindus. he praised Hinduism. This is why Aurungzebe styled him a kafir (infidel). At the same time, he had great delight in talking to the Jesuit fathers on religion, and making them dispute with his learned Mahommedans, or with Cermad [Sarmad] an atheist much liked by the prince. This man went always naked, except when he appeared in the presence [176] of the prince when he contented himself with a piece of cloth at his waist.”
    And on p. 384, he says : “After Killing own brother. Dara, Aurungzib ordered his court to bring Sarmad, the atheist, to his presence. when he was taken to his presence, Aurungzib asked him where was his devoted prince. He replied that he was then present, ‘but you cannot see him for you tyrannize over those of your own blood; and in order to usurp the Kingdom, you took away the life of your brothers and did other barbarities. On hearing these words. Aurungzebe ordered his head to be cut off.”
    We have seen in the beginning of this Chapter, on the authority of that well-informed author of the “Oriental Biographical Dictionary”, that Sarmad was an Armenian who like his countrymen, had come to India for the purposes of trade. which in those days was the sole occupation of the Armenians in India. And in the prefaces to the Lahore and the Delhi editions of Sarmad’s quatrains (rubayat) by learned biographers he is called an Armenian by nationality and a Christian by religion yet there are some Mohammedan historians and biographers who say Sarmad was a Jew(*7) from Kashan in Persia and a convert to Islam.
    There lived in Calcutta an eminent Persian scholar and a journalist, the late Syed Agah Jalaluddin-al-Hossaini, known as Muyyid-al-Islam, who was, by a strange coincidence, .a native of Kashan, the supposed birthplace of the poet, Sarmad. In order to satisfy ourselves about the vexed question of the poet s nationality we thought of seeking his advice in the matter some eight years ago as he was a great authority on Persian poets, their lives and their works. [177]
    We called on the veteran journalist who had unfortunately lost his sight during the latter years of his life and found him lying on an easy chair, in the editorial office, dictating an editorial to his scribe for his favorite Hablul-Malin. After the usual salutations and compliments we asked the Persian sage about the nationality of Sarmad and the country he hailed from. He was greatly surprised that we, a countryman of the poet, should have any doubts in the matter, as Sarmad was known to be an Armenian from Persia. When we told him that a certain Mohammedan writer had said in a public lecture that Sarmad was a Jew from Kashan, he was -highly amused and remarked sarcastically that it was not possible for a persecuted, miserable, unkempt, unwashed and unlettered Jew of Kashan to rise to the proud and enviable position of a famous Persian poet. ”

    Gazi saiful Islam
    Mymensingh, Bangladesh

  10. Jim Atwellon 30 Mar 2009 at 11:05 am

    Everyone wants to hear a secret.
    Nobody wants to tell one.
    I am you.

    Much love
    Jim Atwell

  11. gazi saiful islamon 30 Mar 2014 at 6:59 pm

    কবি, দবর্শনিক সাঈদ সারমাদের রুবাইয়াৎ
    ভাষান্তর-গাজী সাইফুল ইসলাম

    মোগল সম্রাজ্যের সূর্য যখন অস্ত যাবার জন্য পাটে বসে দিনক্ষণ গুনছিল এটা সেই সময়কার কথা। জগৎ বিখ্যাত স্থাপত্যকর্ম, প্রেমের স্মৃতিস্তম্ভ, সপ্তাশ্চর্যের প্রধান আকর্ষণ তাজমহলের নির্মাতা বাদশাহ শাহ জাহানের শাসনকালের শেষে এবং তাঁর পুত্র বাদশাহ আলমগীরের শাসনকালের শুরুতে দিল্লীতে আবির্ভাব ঘটেছিল এক নেংটা সাধু বা ফকিরের। সেই নেংটা সাধু বা ফকিরই আমাদের আজকের আলোচিত কবি-দার্শনিক সারমাদ। তাঁর সম্পর্কে খুব স্পষ্ট ও বেশি কিছু বলা কঠিন। কেউ বলেন, তিনি ছিলেন পার্সিয়ান মুসলমান, কেউ বলেন আর্মেনিয়ান ইহুদি। কেউ বলেন হিন্দু। আঠারো শতাব্দিতে তিনি দিল্লী এসেছিলেন একজন ব্যবসায়ী হিসেবে। কিন্তু অন্য মতে, সারমাদ ছিলেন ভারতেরই একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব। তিনি না ছিলেন ইহুদি, না ছিলেন হিন্দু, না ছিলেন মুসলমান। তিনি ছিলেন শান্তিকামী, মানবতাবাদী একজন সুফি কবি ও অতীন্দ্রিয়বাদী দার্শনিক। আরবী ও ফার্সি ভাষায় তাঁর ছিল অগাধ পাি ত্য। সেকালের সুপরিচিত পণ্ডিত-শিক্ষক মোল্লা সদর-উদ-দিন শিরাজি, মির্জা আবুল কাসিম ফান্দারসাকিসহ আরও অনেক বিখ্যাত পি তের কাছে বিজ্ঞান ও দর্শন পড়েছিলেন তিনি। তাঁর কাছে রাজা, বাদশাহ্‌, বিচারক, যে ফাঁসির হুকম দেয় আর যে ফাঁসিতে ঝুলে সবাই ছিল এক, সমান মর্যাদার অধিকারী।
    নেংটা সাধুর জীবন যাপন করেও সারমাদ অতি উৎকর্ষ মানের কিছু রুবাইয়াৎ রচনা করেছেন। ওমর খৈয়ামের রুবাইয়াতের সঙ্গে তাঁর কিছু কিছু রুবাইয়াতের তুলনা চলে। যদিও শাহজাহানের কনিষ্ঠ পুত্র শাহ্‌জাদা দারাশিকোর বন্ধু হিসেবে জীবনের শেষদিকে রাজনীতির প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেছিলেন তিনি। দারাশিকোর অনুরোধে তিনি টোর্যাক (বাইবেলোক্ত মোজেজের অনুসারীদের আইনগ্রন্থ, সম্ভবত তৌরাত) ফার্সিতে অনুবাদ করেছিলেন। দারাশিকোর অনুরোধেই তিনি দি দাবিস্তান নামক একটি তুলনামূলক ধর্মগ্রন্থের যোদায়িজম অধ্যায়টি পুনঃ লিখেছিলেন। এই বিখ্যাত আর্মেনিয়ান মণিষী সম্পর্কে আরও জানার জন্য এখন আমরা ইউরোপের বিভিন্ন বিশ্বস্ত উৎসের দিকে চোখ বুলাব। জানা গেছে, থমাস উইলিয়াম বেলী প্রণিত ওরিয়েন্টাল বায়োগ্রাফিক্যাল ডিক্টশনারিটি ১৮৯৪ সালে ওই বিখ্যাত পার্সিয়ান পণ্ডিত এবং ঐতিহাসিক কর্তৃক পূণঃমার্জিত এবং বর্ধিত সংস্করণে বের হয়েছিল। মার্সম্যানের মতে, আর্মেনিয়ানরা ভারতকে দিয়েছিল একজন শক্তিশালী কবি। তাঁর মেধার কারণেই ১৭ শতাব্দির মধ্যভাগে গুনি সাধক ও পণ্ডিত ব্যক্তি হিসেবে তাঁর সুনাম ভারতের মুসলমানদের মধ্যে দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছিল। শুধু ভারতে নয়, তখনকার সময়েও বিশ্বের অনেক দেশেরই সৌন্দর্য পিপাসু মহৎ ব্যক্তিগণ তাঁর নাম শ্রদ্ধার সঙ্গে উচ্চারণ করতেন। এমনকি যে ভাষার কবিদের কবিতার সৌন্দর্যে আজও বিশ্ব বিমুগ্ধ সেই ফার্সি ভাষার কবি ফেরদৌসি, নিজামি, সা’দী, হাফিজ, জামি ও খৈয়ামের দেশে পর্যন্ত তাঁর নাম ছড়িয়ে পড়েছিল। কিন্তু নিজ দেশেই তিনি শক্তিধর মোগল সম্রাট আওরঙ্গজেবের (অন্য নাম -আলমগীর) চক্ষুসূলে পরিণত হয়েছিলেন। কারণ তিনি হয়ে উঠেছিলেন দিল্লীর জনগণের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দু।
    শাহ জাহানের প্রথম পুত্র দারাসিকো, নিয়মানুযায়ী তিনিই ছিলেন মোগল সিংহাসনের বৈধ উত্তরাধিকারী। কিন্তু তাঁকে পেছনে ঠেলে ক্ষমতা দখল করেন ছোট ভাই আওরঙ্গজেব এবং পিতা শাহ জাহানকে বন্দি করেন আগ্রার দূর্গে। সঙ্গে সহ বন্দী হিসেবে যান রাজকুমারী জাহানারা। দারাশিকো আওরঙ্গজেবের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রামের ঘোষণা না দিলেও তাঁর ক্ষমতা দখলের ব্যাপারটা মোটেই মেনে নিতে পারেন নি। দারাশিকোর আরকটি পরিচয়, তিনি ছিলেন পন্ডিত, জ্ঞান পিপাসু। আধ্যাত্মবাদী জ্ঞানে বিশ্বাসী। সর্বোপরি একজন লেখক। তাঁর হাত দিয়ে বহু মূল্যবান গ্রন্থ ফারসি ভাষায় অনূদিত হয়েছে। এমনকি পশ্চিমের পাঠকরা উপনিষদের সঙ্গে পরিচয় লাভ করেছে তাঁর তরজমার বদৌলতেই (দেখুন, আউটলুক-এর সঙ্গে অমর্ত্য সেনের সাক্ষাৎকার, সাক্ষাৎকারটি বাংল ভাষায়ও অনূদিত হয়েছে। পাওয়া যাবে কথা প্রকাশ কর্তৃক প্রকাশিত-মহাকলের মুখোমুখি বইয়ে)।
    বিজ্ঞ সম্রাট শাহ জাহানের দরবারের একজন আমির ছিলেন, এনায়েত খান। তিনি লিখে গেছেন প্রকৃত ঘটনা,“ রাজকুমার দারা শিকো সারমাদের বহু শিষ্যের একজন ছিলেন। তিনি ভবিষ্যৎ বাণী করেছিলেন যে, শাহ জাহানের পরে তিনিই হবেন দিল্লীর সম্রাট। কিন্তু আওরঙ্গজেবই প্রথম মোগল সম্রাট যিনি পিতাকে বন্দী করে আর দুই ভাই দারা শিকো ও মুরাদ বক্সকে হত্যা করে ক্ষমতা দখল করেছিলেন।”
    শোনা যায় যে, দারাশিকো ব্রাহ্মণ্যবাদের দিকে ঝুঁকে পড়েছিলেন। আসল কথা, ভিন্ন ধর্মাবলস্বী লোকদের সঙ্গে দ্বিধাহীন উঠবস করার জন্য, শিক্ষা, রাজনীতি বিষয়ে গভীর প্রজ্ঞার জন্য দারা শিকোর সুনাম ছড়িয়ে পড়েছিল। আবার সাধু সারমাদের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের কারণে তাঁর অলৌলিক ক্ষমতার প্রতিও বিশ্বাসভাজন ছিলেন তিনি। পিতা শাহ জাহানই তাঁকে সারমারদের অবিশ্বাস্য ক্ষমতা সম্পর্কে অভিহিত করেছিলেন। এসব কারণেও আওরঙ্গজেব দারা শিকোকে ভীষণ অপছন্দ করতেন।
    হেনরি জর্জ কীন লিখেছেন,“সারমাদ, কাব্য জগতে যাঁর নাম আর্মেনিয়ান ব্যবসায়ী, যিনি ভারতে এসেছিলেন মোগল সম্রাট শাহজাহানের সময়ে। ভ্রমণের এক পর্যায়ে সিন্দুর কাছে, ইন্দুর তীরে ছোট্ট থাথান শহরে এক হিন্দু বালক আভাই চাঁদের সঙ্গে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তোলেন। আভাই চাঁদ ছিলেন একজন ধনবান হিন্দু রাজার পুত্র। নাসরাবাদীর মতে, সারমাদের শিষ্যত্ব গ্রহণের পর আভাই চাঁদ তাঁর পিতা-মাতা, ঘর-বাড়ি, ধন-সম্পদ সব ফেলে ভিখারী সেজেছিলেন। একজন হিন্দু ফকিরের মতো সঙ্গী হয়েছিলেন সারমাদের। একই লেখকের মতে, “সারমাদের মৃত্যুদে র পরপরই আভাই চাঁদেরও মত্যু হয়েছিল গুরুর শোকে।”
    সারমাদের হত্যকাণ্ডের পেছনে অনেক গল্প প্রচলিত আছে। কোনটি সত্য বলা কঠিন। ইউরোপীয়ান লেখক, নিকোলাস মানুসি তাঁর ুঝঃড়ৎরধ ফড় গড়মড়ষচ-এ (উইলিয়াম আরভিন কর্তৃক ১৯০১ অনূদিত) লিখেছেন, “দারা কোনো ধর্মই পালন করত না। যখন তিনি মুসলমানদের সঙ্গে থাকতেন মুহাম্মদের মতবাদের প্রশংসা করতেন, যখন ইহুদিদের সঙ্গে থাককেন, ইহুদি ধর্মের প্রশংসা করতেন। আবার যখন হিন্দুদের সঙ্গে থাকতেন, একইভাবে হিন্দু ধর্মের প্রশংসা করতেন। একই সময় তিনি খ্রিস্টানধর্মাবলস্বী ফাদারের সঙ্গে কথা বলেও খুব আনন্দ পেতেন। আর নেংটা পৌত্তলিক সারমাদের প্রতি ছিল তাঁর দারুণ পক্ষপাতিত্ব। এই সব কারণে আওরঙ্গজেব তাঁকে কাফের হিসেবে আখ্যায়িত করতেন। সারমাদ সব সময় নেংটা থাকতেন কিন্তু যখন প্রাসাদে রাজকুমারের সঙ্গে দেখা করতে যেতেন এক পিস কাপড়ে লজ্জাস্থান ঢেকে নিতেন।”
    একই বইয়ের আরেক জায়গায় তিনি লিখেছেন, “ভাই দারাশিকোর মত্যুর পর আওরঙ্গজেব তার লোকদের আদেশ দিলেন সারমাদাকে তার সামনে হাজির করতে। সারমাদ প্রাসাদে পৌঁছলে আওরঙ্গজেব তাকে জিজ্ঞেস করলেন, আপনার ভক্ত সারমাদ কোথায়? তিনি তখন উত্তর দিলেন, প্রাসাদেই আছেন কিন্তু আপনি তাঁকে দেখতে পাবেন না। কারণ আপনি আপনার রক্তের ওপর নিপীড়ন করছেন। এবং সম্রাজ্যের মালিক হয়ে, আপনি আপনার ভাইদের জীবনও কেড়ে নিতে পারেন কিংবা তাঁদের সঙ্গে করতে পারেন চরম বর্বরতা।” সারমাদের এই নিরুদ্বেগ বক্তব্য শুনে আওরঙ্গজেবের কণ্ঠ কঠোর হয়ে উঠল, সঙ্গে সঙ্গে নির্দেশ দিলেন, “একেও কতল করা হোক।”
    কেউ কেউ অবশ্য ভিন্ন কথা বলেন। তারা বলেন, একদিন দারাশিকো সারমাদের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, ভবিষ্যতে কোনোদিন তাঁর সিংহাসন লাভের সম্ভাবনা আছে কি-না। উত্তরে সারমাদ বলেছিলেন, “আল্লাহ আপনাকে চিরদিনের মতো সার্বভৌমত্ব দান করবেন। এবং আমার এ ভবিষ্যৎবাণী বিফল হবে না।” এ ভবিষ্যৎ বাণীর পরই সম্রাট তাঁর প্রতি বেশি বিরাগভাজন হয়ে পড়েছিলেন।
    সারমাদ যখন দেখলেন যে, সিংহাসনের জন্য ছেলে পিতাকে কয়েদ করেছে, ভাই ভাইকে খুন করেছে তখন তিনি চুপ করে থাকলেন না? সরাসরি রাজনৈতিক কর্মকাে অংশ গ্রহণ না করে প্রিয় শিষ্যের হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদ জানালেন কবিতা লিখে। কবিতার মাধ্যমে তিনি গোঁড়া আওরঙ্গজেবকে কটাক্ষ করলেন । তিনি লিখলেন,
    ‘ও! রাজাদের রাজা!
    বিবস্ত্র হতে পারি কিন্তু আমি তোমার মতো অসাধু নই
    ক্ষুব্ধ, কিংকর্তব্যবিমূঢ় হতে পারি কিন্তু হতাশ নই,
    প্রতিমার উপাসনা করতে পারি কিন্তু একজন বিশ্বাসী নই
    মসজিদেও যেতে পারি কিন্তু একজন মুসলমান নই।’
    আওরঙ্গজেব ইতোপূর্বেই ঘোষণা দিয়েছিলেন যে, “আমার রাজ্যে কেউ নগ্ন হতে পারবে না’। অনেকে মনে করেন, সম্রাটের এ আদেশ অমান্য করার অপরাধেই তাঁর মৃত্যুদ হয়েছিল। অর্থাৎ ভিন্নমত (মতান্তরে ভিন্ন ধর্মমত) পোসনের জন্য ১৬৬১ সালে তাঁর শিরোচ্ছেদ করা হয়। দিল্লী জামে মসজিদের কাছে তাঁর দ কার্যকরণ স্থলে সে দিন নজির বিহীন লোকের সমাগম ঘটেছিল। যদিও মুসলিম ধর্মাচার থেকে অনেকটা দূরে সরে গিয়েছিলেন সারমাদ, তবু মসজিদ থেকে মাত্র ১৭২ কদম দূরে তাঁর সমাধী তৈরি হয়। তাঁর মৃত্যুর ৩৫০ বছর পরও হিন্দু ও মুসলমান উভয় ধর্মের লোকেরা তাঁর কবরে ফুলদান করেন এবং মোমবাতি জ্বালানোর মাধ্যমে তাঁর প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন। তাছাড়া, গায়কগণ প্রতি সকালে তাঁর মাজারে ভক্তিমূলক গান গায়, বিশেষ করে বৃহস্পতিবার সকালে। আর এক শ্রেণীর মসুলমান তাঁর সমাধীর পাশে বছরে একবার বসন্ত উৎসব পালন করে। আওরঙ্গজেবের আদেশেই যে ওই নেংটা সাধুকে হত্যা করা হয়েছিল ভারতীয় জনগণ এটা আজও তা ভুলেনি এসবই তার প্রমাণ। মোগল ইতিহাসের কোথাও ইংরেজি ১৬৬১ সালের ওই ঘটনার উল্লেখ নেই কিন্তু রয়েছে অসংখ্য প্রেমিক মানুষের অন্তরে। সারমাদের জন্য তাঁরা আজও সমান ক্ষুদ্ধ।
    সারমাদের সব রুবাইয়াৎ সংগ্রহ করে প্রকাশ করা সম্ভব হয় নি। যদিও উর্দু ভাষায় কবির জীবনী সংযুক্ত করে লাহোর, দিল্লী ও বম্বেতে তাঁর কিছু সংখ্যক রবাইয়াতের লিথোগ্রাফ করা হয়েছে। ড. রিউয়ের মতে, সারমাদের চারশোর বেশি রুবাইয়াৎ ব্রিটিশ মিউজিয়ামে সংরক্ষিত আছে। তাঁর কবিতায় বড় একটি সংগ্রহ রয়েছে রামপুর স্ট্যাট ওরিয়েন্টাল লাইব্রেরিতে। আর আছে তাঁর পোট্রেটে, সঙ্গে প্রিয় ভাবশিষ্য আভাই চাঁদ। ফ্রাসোয়াঁ বার্নেয়ার এম.ডি., যিনি শাহ জাহানের কোর্টে একজন চিকিৎসক ছিলেন, তাঁর হিন্দুস্তান বইয়ে একজন নেংটা হিন্দু ফকিরের কথা লিখেছেন, যাতে সারমাদ সম্পর্কে ইঙ্গিত পাওয়া যায়। সারমাদের মৃত্যুর সংবাদ শুনে বার্নেয়ার লিখেছিলেন, “দীর্ঘ সময় আমি একজন সম্মানিত ফকিরের কারণে বিরক্ত ছিলাম, যিনি দিল্লীর রাজপথে হাঁটতেন সম্পূর্ণ নেংটা হয়ে। তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি আওরঙ্গজেবের হুমকি-ধমকি অবজ্ঞা করে চলতেন। এ জন্য তাঁকে ভোগ করতে হলো চরমদণ্ড। কিন্তু মৃত্যুর আগের মুহূর্তেও তিনি আওরঙ্গজেবের আদেশ অমান্য করেছেন। পোশাক পরতে রাজি হয় নি।”
    সারমাদের হত্যার পেছনে আরও একটি কারণ খুঁজে পাওয়া যায়, তাহলো, তাঁর রুবাইয়াৎ। জনশ্রুতি রয়েছে যে, হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)-এর মিরাজ নিয়ে তিনি যে রুবাইয়াতটি রচনা করেছিলেন সেটির বক্তব্য মেনে নিতে পারে নি আওরঙ্গজেবের পারিষদবর্গ। সারমাদ লিখেছিলেন,
    ‘মোল্লারা বলে, আহমদ স্বর্গে প্রবেশ করেছেন
    কিন্তু সারমাদ বলে, স্বর্গই প্রবেশ করেছে আহমদের ভেতর।’
    আওরঙ্গজেব তাঁর চারপাশে যে চাটুকারদের পুসতেন কতকটা তাঁদের পরামর্শে আর কতকটা সাধক সারমাদের প্রতি নিজের প্রতিহিংসার কারণে ওই রুবাইয়াতের ভিন্ন অর্থ করলেন। বললেন, এটা মিরাজ সম্পর্কে সুস্পষ্ট উপহাস। আসলে সুফিবাদীরা সৃষ্টি ও স্রষ্টার মধ্যে ঐক্যে বিশ্বাস করেন। এই মতবাদে আপত্তিকর কিছু রয়েছে বলে অনেকেই মনে করেন না। তাছাড়া, কিছু উলমায়ে কেরামও মনে করেন, পবিত্র কোরানে বোরাকে চড়ে রসুল্লাহর (সাঃ) স্বর্গ ভ্রমণের (মিরাজে যাওয়ার) যে বর্ণনা রয়েছে, তা রূপক ও আধ্যাত্ব। কিন্তু গোঁড়া আওরঙ্গজেব তা মানলেন না। তিনি ব্লাসফেমি আইনে সারমাদকে মৃত্যুদ দিলেন।
    বার্নেয়ার আরও লিখেছেন, সারমাদ ভারতে এসেছিলেন নদী পথে। ইন্দুর তীরে সিন্ধের থাথান এলাকায় তিনি তাঁর ব্যবসায় মাত্রাতিরিক্ত প্রসার ঘটিয়েছিলেন। তিনি আরাম-আয়েশেই সেখানে বসবাস করছিলেন। কিন্তু একদিনের ভ্রমণে শহরে গিয়ে আভাই চাঁদ নামের এক হিন্দু বালকের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে তুলেন। ওখান থেকেই শুরু তাঁর জীবনের মোড় পরিবর্তনের। তিনি তাঁর ব্যবসায়িক কাজে উদাসীন হয়ে পড়েন, লাভলোকসানের খতিয়ান ভুলে সংসার বিরাগী ফকিরে পরিণত হন। এক পর্যায়ে তিনি তাঁর পরনের কাপড় পরিত্যাগ করেন। হয়ে যান নেংটা ফকির। এই নেংটা অবস্থাতেও তিনি আভাই চাঁদের বাড়ির সামনে চলে আসতেন। প্রথম দিকে সারমাদের সঙ্গে আভাই চাঁদের সম্পর্ক মেনে নিতে পারেননি না তাঁর জমিদার পিতা-মাতা। কিন্তু শেষ পর্যন্ত যখন তারা দেখলেন যে, এ সম্পর্ক শুধু বন্ধুত্বের নয়, গুরুশিষ্যের, তখনই আর প্রতিবাদ করলেন না।”
    দারা শিকোর চিঠি থেকে গুরুর প্রতি শারগেদের উঁচু শ্রদ্ধার নিদর্শন পাওয়া যায়।
    আমার পীর এবং শিক্ষাগুরু,
    প্রতিদিন আমি আমার শ্রদ্ধা আপনার উদ্দেশ্যে পাঠাতে চাই। কিন্তু সে ইচ্ছে আমার রয়ে যায় অপূর্ণ। আমি যদি আমি হয়ে থাকি, কেন তাহলে কোনো কিছুতেই আমার কোনো পরিকল্পনা নেই? যদি আমি না হয়ে থাকি আমি, তাহলে কী আমার অপরাধ? যদিও ঈমাম হোসেনের হত্যাকাণ্ড আল্লার ইচ্ছেতেই ঘটেছিল: তাহলে তাদের মধ্যে ইয়াজিদ কে? আর যদি আল্লার ইচ্ছেতে তা না ঘটে থাকে, তাহলে, ‘‘আল্লার যা ইচ্ছে তাই তিনি করেন এবং সেই আদেশ দেন যা তাঁর মনে আসে।’’ এর অর্থ কী দাঁড়ায়। দেখা গেছে, শ্রেষ্ঠ নবী অবিশ্বাসীদের বিরুদ্ধে প্রায়শই যুদ্ধে গেছেন। যে কোনে ধরনের পরাজয় ইসলামের সৈনিকদের মানসিকতার ওপর আঘাত হানত। বিশিষ্ট্য পণ্ডিতগণ বলেছেন, ওটা হলো পশ্চাৎপসারণ থেকে শিক্ষা গ্রহণ করা। সঠিক সিদ্ধান্তে পৌঁছার জন্য তাহলে কোন শিক্ষাটা জরুরি?
    ধারণা করা হয় দু’লাইনের একটি কবিতার মাধ্যমে সারমাদ দারাশিকোর এ চিঠির উত্তর দিয়েছিলেন।
    প্রিয়তম আমার,
    ‘‘আমরা যা পড়ি, ভুলে যাই, কিন্তু বন্ধুর উপদেশ মনে রাখি,
    বার বার আবৃত্তি করি বহুদিন।’’
    মিয়ান মিরের লেখা থেকে দেখা যায়, দিল্লী আসার আগে তিনি বহুদিন লাহোরে ছিলেন। তাঁর ওই সময়ের জীবনে রয়েছে প্রচুর গল্প। মিয়ান মিরের মতো, শিষ্য দারাশিকোর হত্যাকাণ্ডই তাঁকে দিল্লী নিয়ে গিয়েছিল। লাহোর একটি কথা প্রচলিত আছে যে, মোগল সম্রাজ্য ধ্বংস হয়েছে সারমাদের অভিশাপে। আবার দারাশিকোও ছিলেন লাহোরবাসীর খুব প্রিয়পাত্র।
    সারমাদ ছিলেন আরবী ও ফারসি ভাষায় পণ্ডিত। তাঁর অধিকাংশ কবিতাই রুবাইয়াৎ (বা কোয়াট্রিয়ান) আকারে লিখা। একটি রুবাইয়াতে তিনি লিখেছেন, গজলে তিনি হাফিজ আর রুবাইয়াতে তিনি ওমর খৈয়ামকে অনুসরণ করেছেন। বলা হয়ে থাকে যে, জল্লাদ যখন সারমাদকে বিচার স্থল থেকে দ কার্যকরণ স্থানে নিয়ে এলো, সারমাদ উপস্থিতমত ২৪টি রুবাইয়াৎ মুখে মুখে আওড়ে গিয়েছিলেন।
    শেষ সময় যখন ঘনিয়ে এলো, আওরঙ্গজেব আদেশ করলেন, জল্লাদ!
    নিম্ন জাতের সুইপার শ্রেণীর একটি মানুষ, খোলা তলোয়ার হাতে তাঁর সামনে দাঁড়াল। নিয়মানুযায়ী হত্যা করার আগে দি তের মাথা কালো কাপড়ে ঢেকে নিতে হয়। জল্লাদ কাপড় দিয়ে সারমাদের চোখ বেধে দিতে চাইলে সারমাদ ইঙ্গিত করলেন, চোখ না বাধার জন্য। এরপর তিনি হাসলেন আর জল্লাদের উদ্দেশ্যে বললেন:
    ‘‘খোলা তলোয়ার হাতে বন্ধু (জল্লাদ) এসে দাঁড়িয়েছ কাছে
    তাহলেও কীসের এত অস্বস্তি তোমার? আমি চিনেছি তোমাকে…’’
    ওটা আসলে এসব রুবাইয়াৎ ছিল আওরঙ্গজেবের উদ্দেশ্যে তাঁর প্রকাশ্যে বিদ্রুপ। এরপর তিনি আরও উচ্চরণ করলেন,
    ‘‘দাঙ্গাহাঙ্গামার শব্দ শুনে চিরস্তন ঘুমের জগৎ থেকে চোখ খুলে তাকালাম আমরা দেখলাম, চারপাশে চলছে ভয়াবহ অশুভ শক্তির রাজত্ব, ফলে আবার ঘুমিয়ে পড়লাম…।’’
    আওরঙ্গজেবের দরবারের ধারাভাষ্যকার আকিল খান রাজি, লিখেছেন যে, জল্লাদ যখন তলোয়ার ওপরে উঠাল, সারমাদ তখন অবিচলিত কণ্ঠে বলতে লাগলেন-
    ‘‘বন্ধুদের কাছে বন্ধুর শারীরিক নগ্নতা নিতান্তই পথের ধূলো
    এ নিয়ে তারা কখনো করে না খেদ,
    কিন্তু নগ্নতাও কারও জন্য হয় কাল
    তরবারির আঘাতে ঘটে শিরোচ্ছেদ’’
    সারমাদের একজন শিষ্য ছিলেন শাহ আসাদুল্লাহ, মৃত্যুর আগে তিনি তাঁর কাছে গিয়ে বলেছিলেন,
    ‘‘নগ্নতা ঢেকে ঈশ্বরের নাম জপ করুন প্রিয় বন্ধু, এখন আপনার মৃত্যু হচ্ছে।’’
    মাথা উঠিয়ে সারমাদ তাঁর দিকে তাকালেন এবং উত্তর দিলেন,
    ‘‘মনসুরের (সম্ভবত মুনসুর হাল্লাজ) দীর্ঘ সময়ের খ্যাতি যেমন
    পরিণত হয়েছিল পুরনো নিদর্শনে
    চর্ম-ত্বকে ঝোলানো মাথা আর পাণ্‌ডুবর্ণ চোখ
    আমারও তেমনি প্রদর্শিত হবে, দেখবে দিল্লীর জনগণে।’’

Trackback URI | Comments RSS

Leave a Reply